বছরে ১৫ লক্ষ বাংলাদেশিকে ভিসা দিচ্ছে ভারত : রীভা গাঙ্গুলী

3090
বছরে ১৫ লক্ষ বাংলাদেশিকে ভিসা দিচ্ছে ভারত : রীভা গাঙ্গুলী

বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার রিভা গাঙ্গুলী দাশ বলেছেন, ভারত-বাংলাদেশের সম্পর্ক খুব ঘনিষ্ঠ। আগামীতে এই সম্পর্ক আরো গভীর হবে। আমাদের দুই দেশের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্য রয়েছে। ভারতে বিদেশ থেকে যে পরিমাণ লোক যায়, তার মধ্যে বাংলাদেশিদের সংখ্যা বেশি। গত বছর আমরা ১৫ লক্ষ বাংলাদেশিকে ভিসা দিয়েছি। মানুষে মানুষে যে সম্পর্ক তা আমাদের দুই দেশের মধ্যে ব্যাপকভাবে রয়েছে।

আসন্ন শারদীয় দুর্গা পূজার অগ্রিম শুভেচ্ছা জানিয়ে তিনি বলেন, আগামীতে বাংলাদেশ-ভারতের সম্পর্ক যাতে আরো গভীর হয় সে লক্ষ্যে আমাদের কাজ করে যেতে হবে।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে কাহারোল উপজেলার দীপ্ত জীবন হাসপাতালে প্রতিবন্ধী ও দুস্থ্যদের মাঝে হুইল চেয়ার ও সেলাই মেশিন বিতরণ অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

দিনাজপুর ১ আসনের সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজুল ইমাম চৌধুরী।

এ সময় মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি বলেন, প্রত্যেক ক্লান্তি লগ্নে ভারত আমাদের পাশে ছিল। মুক্তিযুদ্ধে মিত্র বাহিনীর রক্ত মিশিয়ে বাংলাদেশ স্বাধীন করেছি। বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে রক্তের সম্পর্ক রয়েছে। যা আগেও ছিল ভবিষ্যতেও থাকবে।

হাসপাতালের বর্ণনা দিয়ে এমপি গোপাল বলেন, বিগত ৫ বছর ধরে এই হাসাপাতালে বিনামূল্যে চিকিৎসা ও ওষুধ প্রদান করা হচ্ছে। এই হাসপাতালের অধিনে দুটি প্রতিবন্ধী স্কুল ও একটি বৃদ্ধাশ্রম পরিচালনা করা হয়।

অনুষ্ঠানের শুরুতে রীভা গাঙ্গুলি দাশ দীপ্ত জীবন হাসপাতালে পৌছলে তাঁকে সম্মাননা স্মারক প্রদান করে সংবর্ধনা জানান মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি। পরে দীপ্ত জীবন ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক মো. ইয়াছিন আলীর সঞ্চালনায় দীপ্ত জীবন হাসপাতালের সৌজন্যে ৬টি হুইল চেয়ার ও ১৫টি সেলাই মেশিন প্রতিবন্ধী ও দুস্থ্যদের মাঝে বিতরণ করেন প্রধান অতিথি রীভা গাঙ্গুলী দাশ।

এর আগে দুপুর ১২ টায় ঐতিহাসিক নয়াবাদ মসজিদ পরিদর্শন শেষে কান্তজীউ মন্দির পরিদর্শন করেন তিনি। পরে মন্দিরে ছোট পরিসরে সংবর্ধনা জ্ঞাপন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সেখানে দিনাজপুর রাজদেবোত্তর এস্টেটের এজেন্ট অমলেন্দু ভৌমিকের সভাপতিত্বে ও বিশিষ্ট সাংবাদিক চিত্ত ঘোষের সঞ্চালনায় সেখানে প্রধান অতিথি রিভা গাঙ্গুলী দাশ ও মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। পরে মন্দির প্রবেশ সড়ক দ্বীপে সাঁওতাল বিদ্রোহ ও তেভাগা আন্দলোনের বিপ্লবীদের স্মরণে স্মারক ভাস্কর্য তেভাগা চত্বর পরিদর্শন করেন ভারতীয় হাই কমিশনার।

দিনব্যাপী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ভারতীয় সহকারী হাই কমিশনার সঞ্জীব কুমার ভাট্টি, ভারতীয় হাই কমিশনারের ফার্স্ট সেক্রেটারি (রাজনৈতিক) নবনিতা চক্রবর্তী, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক জয়নুল আবেদীন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহফুজ্জামান আশরাফ, সার্কেল এসপি সুশান্ত সরকার, দিনাজপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি স্বরুপ বকসী বাচ্চু, কাহারোল নির্বাহী অফিসার মো. নাসিম আহমেদ, বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইয়ামিন হোসেন।